• শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৩:২০ পূর্বাহ্ন |
  • Bangla Version
নিউজ হেডলাইন :
করোনা শনাক্তের হার ১৫ শতাংশের বেশি, মৃত্যু ১ কালিয়াকৈরে কলেজছাত্র হত্যাকারীদের গ্রেফতার দাবিতে মানববন্ধন টাঙ্গাইলে নদীর পানি কমলেও তীব্র হচ্ছে ভাঙন গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়ার মুক্তির লক্ষ্যে সবাই ঐক্যবদ্ধ: আমীর খসরু খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য ‘দাওয়াই’ লাগবে: মির্জা আব্বাস কোটা পুনর্বহাল বৈষম্য প্রকট করবে: এবি পার্টি কাঁচা মরিচের ঝাল ও পেঁয়াজের ঝাঁজ দুটোই বেশি বাজারে আর্থিক তথ্য প্রকাশ আরও সীমিত করল কেন্দ্রীয় ব্যাংক সপ্তাহের শেষ দিনে বিক্রির চাপে সূচক ও লেনদেন কমেছে তীব্র লোডশেডিংয়ে ভুগছেন মফস্‌সলের ছোট উদ্যোক্তারা সুন্দরবনের যে ফলটি হরিণ-বানরের প্রিয়, কাজে লাগে মানুষেরও তিন ঘণ্টার ৬০ মিলিমিটার বৃষ্টিতে ডুবল ঢাকার অনেক রাস্তা তমাকে বিয়ে প্রসঙ্গে যা বললেন রাফী ‘সিনেমাটি না দেখলে মিস করবেন’, বললেন জয়া প্রশ্নপত্র ফাঁস–কাণ্ডে গ্রেপ্তার আবেদ আলীর দেখা চান বাপ্পি চৌধুরী ‘অ্যানিমেল’-এর সাফল্যে কত পারিশ্রমিক বাড়ালেন তৃপ্তি

বিডিএফএ’র ঘোষণা মানছেন না ব্যবসায়ীরা, বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে গরুর মাংস

বিশেষ প্রতিনিধি বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিডিএফএ) ঘোষণাকে গ্রাহ্য না করে বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে গরুর মাংস।বিডিএফএ’র ঘোষণা অনুযায়ী, গতকাল সোমবার থেকে ৫০ টাকা কমে ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করার কথা।

তবে এই ঘোষণার কোনও প্রভাব বাজারে দেখা যায়নি। ব্যবসায়ীরা বাড়তি দামেই বিক্রি করছেন গরুর মাংস।মাংস ব্যবসায়ীদের দাবি, সংগঠনের পক্ষে ঘোষণা দিলেও সেটা রক্ষা করতে পারবেন না তারা।কারণ বেশি দামে গরু কিনে এনে কম দামে মাংস বিক্রি করলে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। ব্যবসায়ীরা বলছেন, আগের দামেই গরুর মাংস বিক্রি করছেন তারা। অর্থাৎ ৭৫০ থেকে ৭৮০ টাকা কেজি।বিডিএফএ’র সভাপতি মো. ইমরান হোসেন রবিবার ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের এক কর্মশালায় ওই ঘোষণা দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ভালো মানের গরুর মাংস ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করবেন।তাদের সংগঠনের সদস্য যারা শুধু তাদের প্রতি ওই নির্দেশনা দেন তিনি।ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে রাজধানীর বাজারে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৭৫০ থেকে ৭৮০ টাকায়। এক মাস আগেও একই দামে বিক্রি হয়েছে। গত বছরের এই সময়ে প্রতি কেজি মাংসের দাম ছিল ৬৫০ থেকে ৭৮০ টাকা।

বিডিএফএ সভাপতি মো. ইমরান হোসেন বলেন, “আমরা যারা খামারিরা মাংস বিক্রি করি তাদের অনুরোধ করা হয়েছে মাংসের দাম কমানোর জন্য। দেশে সব জিনিসের দাম শুধু বাড়েই, কিন্তু কমে না। এজন্য আমরা কমানোর ঘোষণা দিয়েছি, যে কমা শুরু হোক। অন্যদিকে খামারিদের বলেছি, যেন গরুর দাম কিছুটা কম রাখা হয়, যাতে বাজারের বিক্রেতারা মাংস কম দামে বিক্রি করতে পারেন।”


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.