• শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৩:৫১ পূর্বাহ্ন |
  • Bangla Version
নিউজ হেডলাইন :
করোনা শনাক্তের হার ১৫ শতাংশের বেশি, মৃত্যু ১ নিম্নচাপ এগোচ্ছে বাংলাদেশের দিকে, শনিবার রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড়ে কোপার আগে কোস্টারিকা থেকে অবসর কেইলর নাভাসের শেষ পর্যন্ত জাভিকে বরখাস্তই করল বার্সা যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হার নিয়ে সাকিব, ‘টি-টোয়েন্টিতে ছোট-বড় দল বলে কিছু নেই’ ফিফার জরিমানা নিয়ে বিবৃতিতে যা বললেন সালাম মুর্শেদী পিওলিকে বরখাস্ত করল এসি মিলান কয়েক ঘণ্টা পর মেরিল–প্রথম আলোর জমকালো আসর সবচেয়ে বাজে পরামর্শ নিয়ে মুখ খুললেন জ্যাকুলিন নতুন লুকে আনুশকা! কানে নিজের ছবির প্রিমিয়ারে থাকবেন ইরানের দণ্ডপ্রাপ্ত সেই নির্মাতা যে কারণে বিয়ে করতে চান না, জানালেন প্রভাস বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের মতবিনিময় মহাসড়ক যেন ময়লার ভাগাড় কুড়িগ্রামে মাদকসহ যুবক গ্রেফতার বিরামপুরে শ্রেণিকক্ষে যৌন হয়রানি, ইউএনও কার্যালয়ে অভিযোগ শিক্ষার্থীদের

ব্রহ্মপুত্র নদে পুণ্যার্থীদের ভিড়

গাইবান্ধা প্রতিনিধি গাইবান্ধা সদর উপজেলার কামারজানি বন্দর ও ফুলছড়ি উপজেলার বালাসীঘাট ও তিস্তামুখঘাটে ব্রহ্মপুত্র নদ পাড়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঐতিহ্যবাহী অষ্টমী স্নান। মঙ্গলবার ভোর ৪টা থেকে স্নানের লগ্ন শুরু হয়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে পুণ্যার্থীদের ঢল নামে। হিন্দু পঞ্জিকামতে চৈত্র মাসের অষ্টমী তিথিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষরা পাপ মোচনের আশায় পবিত্র অষ্টমী স্নানে অংশ নেন।। স্নানের লগ্ন শেষ হয় বিকেল ৪টা ৫৬ মিনিটে।

মঙ্গলবার সকাল জেলা সদরসহ আশেপাশের উপজেলাগুলো থেকে পুণ্যার্থীর পদচারণে মুখর হয়ে উঠেছে পুরো ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়। পুণ্যার্থীরা পাপ মোচন ও পুর্ণ লাভের আসায় ব্রহ্মপুত্র নদে স্নানে নেমেছেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুণ্যার্থীদের চাপ বাড়তে থাকে। প্রতিবছর ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে ঐতিহ্যবাহী এই অষ্টমী স্নান অনুষ্ঠিত হয়।এ উপলক্ষে ওইসব এলাকায় ঐতিহ্যবাহী অষ্টমী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। দূর-দূরান্ত থেকে খুদে ব্যবসায়ীরা ব্রহ্মপুত্রের বালুর ওপর তৈরি করেছেন নানা রকম পণ্যের স্টল। নদের কূল ধরে বসেছে মাটির জিনিসপত্রসহ বিভিন্ন রকমের দোকানপাট। বিভিন্ন দেব-দেবীর মূর্তি, পুতুল, বাঘ, নৌকা, খুরমা বাতাসা, চিনির তৈরি জীবজন্তুর প্রতিকৃতির শ্বাস, হাঁড়ি-পাতিলসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য।

স্থানীয়রা বলেন, সকাল থেকে স্নানোৎসবে অংশ নিতে গাইবান্ধা সদরের কামারজানি বন্দরসহ ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের বালাসীঘাট এবং গজারিয়া ইউনিয়নের তিস্তামুখঘাটে পুণ্যার্থীরা ভিড় করেন। নারী-পুরুষ পুণ্যার্থীরা সড়ক পথ ও নৌপথে স্নানে অংশ নিতে আসেন। ঘাটগুলোতে পুরোহিতের কাছে মন্ত্রপাঠ করে স্নানে নেমে পড়েন তারা। স্নান উপলক্ষে এসব ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ের ঘাটগুলোতে কড়া নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

ভক্তরা বলেন, এই দিনে নদীতে স্নান করলে ভগবান সব পাপ থেকে মুক্ত করে দেন। তাই পাপমুক্তির আশায় প্রতি বছর এখানে আসেন তারা। দেশ ও জাতি যেন সকল দুর্যোগ থেকে মুক্তি লাভ করে এবং ধর্মীয় ভেদাভেদ ভুলে আমরা সবাই যেন জাতির কল্যাণে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলতে পারি এই কামনাই করেন সৃষ্টিকর্তার কাছে।

এই স্নান উৎসব কমিটির সহ-সভাপতি তপন কুমার এনি বলেন, প্রতিবছরের মতো এবারও বিভিন্ন স্থান থেকে বিপুলসংখ্যক পুণ্যার্থী ব্রহ্মপত্র নদের পাড়ে এসেছেন। দেশ ও জাতির মঙ্গলসহ পারিবারিক শান্তি কামনা করে অনুষ্ঠিত হয় অষ্টমীর পুণ্য স্নানোৎসব। অষ্টমীর স্নান উপলক্ষে ব্রহ্মপুত্র নদ পাড়ে তৈরি হয়েছে উৎসবমুখর পরিবেশ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.